ই-পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে। E-Passport Korte ki ki Lage 2023

ই-পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে। কিভাবে আপনি ঘরে বসে ই পাসপোর্ট তৈরি করবেন খুব সহজে। সেই বিষয়গুলি আজকে আপনাদের সাথে আলোচনা করা হবে। এবং আমাদের ওয়েবসাইটে পাসপোর্ট সম্পর্কিত সকল ধরনের তথ্য নিয়মিত আপডেট করা হবে। যদি আপনি পাসপোর্ট সম্পর্কের কোন কিছু জানতে চান এক্ষেত্রে অবশ্যই আমাদের ওয়েবসাইটটি নিয়মিত ভিজিট করবেন।

আজকের বিষয় সমুহ।

ই-পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে।

বর্তমান সময়ে আমাদের বাংলাদেশসহ সকল দেশের মানুষ বিভিন্ন দেশে ভ্রমণ করতে অনেক বেশি আগ্রহী সেজন্য তাদের জন্য তৈরি করা হয়েছে ই-পাসপোর্ট সিস্টেম।

যেটার মাধ্যমে আপনি যেকোনো জিনিস খুব সহজেই গ্রহণ করতে পারবেন এবং কোন প্রকার ভেজার হবেনা বা ঝামেলা ছাড়াই যে কোন প্রকার হোটেল বা রেস্টুরেন্টে আপনি প্রবেশ করতে পারবেন।

আজকে আমরা দেখে নেব ই-পাসপোর্ট তৈরি করতে কি কি প্রয়োজন হয়। ঘরে বসেই পাসপোর্ট তৈরি করতে পারবেন তবে এ বিষয়ে পরবর্তী আর্টিকেলে আমরা বিস্তারিত আলোচনা করব।

ই-পাসপোর্ট আপনি যদি তৈরি করতে চান এক্ষেত্রে আপনার যে সমস্ত কাগজপত্র এবং ডকুমেন্ট প্রয়োজন হবে। সেই ডকুমেন্টগুলি এখন আপনার সাথে শেয়ার করব আপনার কাছে যদি এই ডকুমেন্ট বা কাগজপত্র থাকে তাহলে আপনিও কিন্তু এই পাসপোর্ট এর জন্য আবেদন করতে পারবেন।

ই-পাসপোর্ট করতে কি কি লাগবে ২০২৩।

যদি আপনি অনলাইনে ই পাসপোর্ট আবেদন করতে চান এক্ষেত্রে অবশ্যই আপনার জানার প্রয়োজন হবে কি কি ডকুমেন্ট লাগতে পারে। এবং কিভাবে এই কাগজপত্র গুলি জমা দিতে হবে।

ই-পাসপোর্ট তৈরি করতে অবশ্যই আপনার বেশ কিছু বাংলাদেশ সরকার অধিনের কাগজপত্র বা ডকুমেন্ট প্রয়োজন হবে যেগুলো দিয়ে ই-পাসপোর্ট আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিনিয়ত আমাদের বাংলাদেশের অন্য দেশের মতো আপডেট বিষয়গুলি লক্ষ্য রাখা হচ্ছে। সেরকমভাবে এই পাসপোর্ট চালু করা হয়েছে আপনি চাইলে এই পাসপোর্ট এর মাধ্যমে অন্য কোন দেশে খুব সহজেই নিজের পরিচয় প্রদান করতে পারবেন।

ই-পাসপোর্ট তৈরি করতে নিচে থাকা ডকুমেন্টগুলি অবশ্যই আপনার প্রয়োজন হবে। যদি আপনার কাছে এই ডকুমেন্ট গুলি না থাকে তাহলে দ্রুত সময়ের মধ্যে সংরক্ষণ করে ই-পাসপোর্ট এর জন্য আপনি আবেদন করতে পারেন।

ই-পাসপোর্ট করতে যা যা লাগবে। ২০২৩

আবেদনপত্রের ফটোকপি: অবশ্যই আপনার প্রয়োজন হবে অর্থাৎ অনলাইন থেকে আপনি সংশ্লিষ্ট আবেদন পত্রটি সংরক্ষণ করে নিবেন। এটি অনলাইন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনি সংরক্ষণ করতে পারবেন এবং সেটি প্রিন্ট করে পরবর্তী সময় আমাদের পরবর্তী কাজে ব্যবহারিত হবে।

আবেদন কপি: যখন আপনি আবেদন করবেন তার একটি কপি আপনার প্রয়োজন হবে উপরে থাকা। আবেদনপত্র ফটোকপি সহ আবেদন কপি সংরক্ষণ করে রাখবেন এটি অনেক জরুরী।

জাতীয় পরিচয়পত্র: আপনার যে জাতীয় পরিচয় পত্র রয়েছে ভোটার আইডি কার্ড সেটি অবশ্যই আনতে হবে এবং এটি ছাড়া কোনভাবে আপনিই পাসপোর্ট তৈরি করতে পারবেন না। ন্যাশনাল আইডি কার্ড অথবা স্মার্ট আইডি কার্ড।

জন্ম নিবন্ধন সনদ: যদি আপনার ভোটার আইডি কার্ড না থাকে তাহলে আপনি জন্ম নিবন্ধন সনদ ব্যাবহার করতে পারবেন। ই-পাসপোর্ট তৈরি করতে জন্ম নিবন্ধন অবশ্যক (ভোটার আইডি কার্ড না থাকিলে)

ঠিকানা প্রমাণ পত্র: ঠিকানা প্রমাণপত্র আপনাকে অবশ্যই ব্যবহার করতে হবে এক্ষেত্রে আপনি বেশ কিছু প্রমাণপত্র ব্যবহার করতে পারেন। যেমন বিদ্যুৎ বিল এর ফটোকপি গ্যাস বিল এর ফটোকপি। এই সমস্ত পত্রের মাধ্যমে ঠিকানা প্রমাণ করতে হবে।

E-Passport Korte ki ki Lage 2023

পূর্ববর্তী পাসপোর্ট: আপনার কাছে যদি আগে থেকে কোন পাসপোর্ট থাকে তাহলে সেটি ব্যবহার করতে পারেন এ ক্ষেত্রে আরো ভালো হবে ই-পাসপোর্ট তৈরি করার জন্য। যদি আপনার আগে থেকে কোন পাসপোর্ট থাকে এক্ষেত্রে অবশ্যই সেটি ব্যবহার করার চেষ্টা করবেন উপকারে আসবে।

পিতামাতার জাতীয় পরিচয়পত্র: পিতা মাতার জাতীয় পরিচয় পত্র যেমন ভোটার আইডি কার্ড বা অন্যান্য কোন পাসপোর্ট ড্রাইভিং লাইসেন্স। এরকম ডকুমেন্ট আপনার প্রয়োজন হবে। শিশুদের ক্ষেত্রে অবশ্যক এই ডকুমেন্টগুলি প্রয়োজন হবে।

পেশাগত সনদপত্র: বর্তমানে কোন পেশায় অবস্থান করেছেন সেই পেশার একটি সনদপত্র প্রয়োজন হবে সেটি যে কোন কিছু হতে পারে। যেমন, শিক্ষগতা, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার , হিসাবরক্ষক, আইনজীবী।

নাগরিক সনদপত্র: নাগরিক সনদপত্র প্রয়োজন হবে কেননা এটি অনেকটাই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে ই-পাসপোর্ট আবেদন করার জন্য। এখনো আপনি আপনার ইউনিয়ন চেয়ারম্যান এবং কাউন্সিলরের মাধ্যমে একটি নাগরিক সনদপত্র তৈরি করতে পারেন।

ই-পাসপোর্ট তৈরি করতে আরও কি লাগবে ?

ই-পাসপোর্ট তৈরি করতে আপনার আরো কিছু ডকুমেন্ট লাগতে পারে তবে এক্ষেত্রে আপনি চেষ্টা করবেন আপনার যত গভারমেন্ট সম্পর্কিত ডকুমেন্ট রয়েছে সেগুলো ব্যবহার করার তাহলে আরো সহজ হয়ে যাবে ই-পাসপোর্ট তৈরি করার ক্ষেত্রে।

উপরে থাকা তথ্যগুলি অবশ্যই ব্যবহার করবেন তাহলে আপনার এই পাসপোর্ট তৈরি করতে কোন সমস্যা হবে না। এবং আপনার কাছে যদি আরো কোন ডকুমেন্ট থাকে যেগুলোর মাধ্যমে আপনার মনে হয় যেগুলো ব্যবহার করলে এই পাসপোর্ট তৈরি করতে আরো সহজ হতে পারে। এই ডকুমেন্টগুলি আপনি ব্যবহার করতে পারেন।

আরো পড়ুন: পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে

ই-পাসপোর্ট সম্পর্কিত আরো তথ্য পেতে আমাদের ওয়েবসাইটের সাথে থাকুন আমরা নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইটে চেষ্টা করবো আপডেট করার জন্য। এবং নতুন নতুন বিষয়গুলি আপনাদের সামনে তুলে ধরার জন্য।

সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন এবং আমাদের ওয়েবসাইটের সাথে থাকবেন এছাড়াও যদি কোন ব্যক্তি ই-পাসপোর্ট তৈরি করতে আগ্রহী হয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই তার সাথে এই আর্টিকেলটি শেয়ার করবেন ধন্যবাদ সবাইকে।

Visited 7 times, 1 visit(s) today

Leave a Comment

x