NID Wallet কি | এনআইডি ওয়ালেট কি কি কাজে ব্যাবহার করা হয়।

আসসালামু আলাইকুম কেমন আছেন সবাই আশা করি সকলে ভালো আছেন আপনাদের সামনে আরো একটি নতুন আর্টিকেল নিয়ে হাজির হলাম আমরা আজকে আলোচনা করব NID Wallet সম্পর্কে এটি মূলত কি এবং কি কি কাজে ব্যবহার করা হয় এনআইডি ওয়ালেট যদি আপনি জানতে চান তাহলে অবশ্যই পুরো আর্টিকেলটি পড়ার অনুরোধ থাকবে।

আমাদের ওয়েবসাইটে নিয়মিত E-Service ক্যাটাগরিতে নিয়মিত আর্টিকেল পাবলিশ করা হবে। যদি আপনি কোন বিষয় জানতে চান এক্ষেত্রে আমাদের যেকোনো একটি আর্টিকেলে কমেন্ট বক্সে জানিয়ে দিতে পারেন আমরা সেই বিষয় নিয়ে পরবর্তী সময় আমাদের ওয়েবসাইটে আপডেট প্রকাশ করবো। এবং সেখানে আপনার সমস্যাটির সমাধান দেওয়ার সম্পূর্ণ চেষ্টা করব।

NID Wallet কি |

NID wallet হলো ন্যাশনাল আইডি কার্ড (NID) থেকে সম্পর্কিত একটি ডিজিটাল ওয়ালেট যা এনআইডি বেইজড পরিচিতি ব্যবহার করে। এই ওয়ালেটটি আইডি প্রমাণপত্র এবং সংযুক্ত তথ্য ব্যবহার করে একটি সিকিউর প্রণালীতে সংরক্ষিত হয়। এটি নথিপত্র, ট্যাক্স পরিশোধ এবং বিভিন্ন অনলাইন সেবার জন্য ব্যবহৃত হয়।

এই ওয়ালেট ব্যবহার করে ব্যবহারকারীরা তাদের নথিপত্র, ট্যাক্স পরিশোধ এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় তথ্য সহজেই অনলাইনে সংরক্ষণ করতে পারেন এবং সেই তথ্যগুলি প্রয়োজন অনুযায়ী প্রয়োজনীয় সেবাগুলি পাওয়া যায়।

এখন আলোচনা করব এনআইডি ওয়ালেট কি। আমাদের বাংলাদেশে নাগরিকত্ব প্রমাণ করার জন্য অবশ্যই আপনার বেশ কিছু ডকুমেন্ট প্রয়োজন হবে তার মধ্যে দুটি ডকুমেন্ট অন্যতম একটি হলো জন্ম নিবন্ধন সনদ এবং অন্যটি হলো ভোটার আইডি কার্ড।

আরোও পড়ুন: NID কার্ড বের করুন ঘরে বসে

এই দুটি কার্ড এর মাধ্যমে আপনি আপনার নাগরিকত্ব এবং তার পরিচয় সনাতক করতে পারবে তো এনআইডি ওয়ালেট হলো বাংলাদেশ এলেকশন কমিশনার বোর্ড এর একটি প্রোডাক্ট বা সফটওয়্যার।

যা ব্যবহারের মাধ্যমে একজন বাংলাদেশ নাগরিক যেকোনো সময় তার ভোটার আইডি কার্ড যাচাই-বাছাই করতে পারবে ও যে কোন সহায়তা গ্রহণ করতে পারবে এই অ্যাপের মাধ্যমে।

এটি আপনি চাইলে ব্যবহার করতে পারবেন তবে অবশ্যই আপনার ভোটার হতে হবে এবং ভোটার হওয়া শুরু থেকে পরবর্তী যেকোনো সময় আপনি এটি ব্যবহারের মাধ্যমে অনলাইন ভেরিফিকেশন এবং আপনার যদি ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে যায় এক্ষেত্রে এটি ব্যবহারের মাধ্যমে আপনি নতুন করে ভোটার আইডি কার্ড আবেদন করতে পারবেন।

এছাড়াও এটি বিভিন্ন কাজের প্রয়োজন হয়ে থাকে আমি আপনাদের সাথে সংক্ষেপে শেয়ার করার চেষ্টা করব এটির মাধ্যমে আমরা কিভাবে উপকৃত হতে পারি এবং এটি কিভাবে ব্যবহার করতে হয়।

এনআইডি ওয়ালেট কেনো প্রয়োজন।

এটি আমাদের কাছে এই কারণে প্রয়োজন কেননা অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজের জন্য আমরা কিন্তু অনলাইন ভেরিফিকেশন করে থাকি এবং আমাদের কাছে যদি ডকুমেন্ট না থাকে এক্ষেত্রে আমরা কয়েকটি ডকুমেন্ট বা ধাপ অবলম্বন করে আমাদের ভোটার আইডি কার্ড অনলাইন থেকে দেখতে পারবো সরাসরি।

এটি আমাদের এই কারণে প্রয়োজন যে আপনার যদি ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে যায় বা আপনি যদি ভোটার আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করে থাকেন অথবা আপনি যদি ভোটার হয়েছেন ভেরিফিকেশনের জন্য আপনার অনলাইন যাচাই করতে হবে এক্ষেত্রে আমাদের এই এনআইডি ওয়ালেট প্রয়োজন হবে ভেরিফিকেশন সম্পন্ন করার জন্য।

যদি এটি আমরা ব্যবহার না করি এক্ষেত্রে কিন্তু আপনি কোনভাবেই নিজ থেকে ভোটার আইডি কার্ড যাচাই করতে পারবেন না। অবশ্যই আমাদের এনআইডি ওয়ালেট (NID Wallet) অ্যাপ প্রয়োজন হবে।

বিশেষ করে আপনি যদি বাংলাদেশ এলেকশন কমিশনের বোর্ড ওয়েবসাইট থেকে কোন কিছু তথ্য সংরক্ষণ করতে চান এক্ষেত্রে কিন্তু অবশ্যই আপনাকে ফেস ভেরিফিকেশন করতে হবে এবং এনআইডি ওয়ালেট অ্যাপ মূলত ফেস ভেরিফিকেশন করার ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

অর্থাৎ আপনি যদি বাংলাদেশ ইলেকশন কমিশনের বোর্ড ওয়েবসাইট থেকে কোন কিছু সংরক্ষণ করতে চান এক্ষেত্রে অবশ্যই আপনাকে ফেস ভেরিফিকেশন করতে হবে তা না হলে কিন্তু কোন তথ্য আপনি সরাসরি দেখতে পারবেন না।

NID Wallet | ব্যাবহার করার নিয়ম।

আমরা দেখে নেব কিভাবে আপনি এনআইডি ওয়ালেট এর ব্যবহার করবেন। ধরুন আপনি বাংলাদেশ ইলেকশন কমিশনার ওয়েবসাইট থেকে আপনার প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট সংরক্ষণ করতে চাচ্ছেন অনলাইন এর মাধ্যমে এক্ষেত্রে আপনার এনআইডি ওয়ালেট প্রয়োজন হবে।

এই সিস্টেমটি করার কারণ হচ্ছে শুধুমাত্র অরজিনাল ভোটার আইডি কার্ড যাচাই এবং যার ভোটার আইডি কার্ড থাকবে সে শুধু তার তথ্য দেখতে পারবে যার জন্য আপনাকে ফেস ভেরিফিকেশন করতে হবে NID Wallet এর মাধ্যমে।

যদি আপনি এটি না করেন তাহলে আপনার প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট দেখতে পারবেন না। ভোটার আইডি কার্ড সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেতে আপনার অবশ্যই প্রয়োজন হবে এনআইডি ওয়ালেট অ্যাপ।

NID Wallet | দিয়ে ভোটার আইডি দেখার নিয়ম।

বাংলাদেশ ইলেকশান কমেশন ওয়েবসাইটে যখন আপনি প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সাবমিট এবং পরবর্তী সময় সব কিছু সঠিক থাকার পর আপনাকে এনআইডি ওয়ালেট অ্যাপে প্রবেশ করতে বলবে। এবং সেখান থেকে আপনাকে ফেস ভেরিফিকেশন করে নিতে হবে।

অ্যাপটি আপনি একদম বিনামূল্যে ব্যবহার করতে পারবেন এর জন্য প্লে স্টোর থেকে আপনাকে মোবাইল ফোনে ইন্সটল করে নিতে হবে। এবং অবশ্যই ইন্সটল করার পূর্বে সঠিক অ্যাপ্লিকেশনটি বেছে নিবেন প্লে স্টোর থেকে এবং সেখানে অবশ্যই দেখতে পারবেন একটি প্রকাশ করা হয়েছে বাংলাদেশ ইলেকশন কমিশনার বোর্ড এই নামে।

NID wallet | এনআইডি ওয়ালেট
NID wallet | এনআইডি ওয়ালেট

এই অ্যাপটি মোবাইল ফোনের কিছুক্ষণের জন্য ইন্সটল করবেন এবং যখন আপনার কাজ শেষ হয়ে যাবে তখন চাইলে আবার আনইন্সটল করে দিতে পারেন কোন কোন সমস্যা নেই।

NID Wallet QR code | এনআইডি ওয়ালেট |

যখন আপনি বাংলাদেশ ইলেকশন কমিশনার ওয়েবসাইটে আপনার ডকুমেন্টগুলো জমা করবেন এবং পরবর্তী সময় তারা যখন আপনাকে ফেস ভেরিফিকেশন করতে বলবে তখন আপনি NID Wallet QR code এর মাধ্যমে অন্য একটি ডিভাইস থেকে সেটি ভেরিফিকেশন করে নিতে পারবেন।

অর্থাৎ যদি আপনি একটি কম্পিউটার ব্যবহার করেন এক্ষেত্রে আপনাকে একটি স্ক্যানার কোড দেওয়া হবে যা পরবর্তী সময়ে আপনি স্ক্যান করে আপনার ফেস ভেরিফিকেশন করে নিতে পারবেন অন্য একটি ডিভাইসের মাধ্যমে।

আশা করি বুঝতে পেরেছেন এনআইডি অনেক সম্পর্কে এবং এটি কি কি কাজে ব্যবহার হয় ও কিভাবে ব্যবহার করতে হয় যদি আপনার কোনো কিছু বুঝতে সমস্যা হয়ে থাকে তাহলে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদের সাথে আপনার সমস্যাটি শেয়ার করতে পারেন। চেষ্টা করবো দ্রুত সময়ে আপনার সমস্যার সমাধান চেক করার জন্য। ধন্যবাদ।

Leave a Comment

x